,
সংবাদ শিরোনাম :

★ অপ্সরী ★ . __পর্বঃ- ০৫__

সময় সংলাপ ডেস্ক

★ অপ্সরী ★
.
__পর্বঃ- ০৫__
.
রাস্তা দিয়ে আনমনা হয়ে হাটছি আর নিশিকে নিয়ে ভাবছি। মেয়েটাকে বলে আসছি যেকোনো একটা ব্যবস্থা করবো। কিন্তু কিছুই তো করতে পারলাম না। এর মাঝে রাস্তায় বাবার সাথে দেখা। আমাকে দেখেই বাবা জিজ্ঞেস করলোঃ-
__আনমনা হয়ে হেটে কোথায় যাচ্ছিস..? কি হইছে তোর..? এইভাবে হাটলে এক্সিডেন্ট করবি তো চল আমার সাথে।
রাস্তার পাশে দিয়ে যদি আপনি আনমনা হয়ে হেটে যান তখন অচেনা লোক আপনাকে কখনো জিজ্ঞেস করবে না ভাই আপনি আনমনা হয়ে কই যান.। একমাত্র আপনজন তারাই বলবে এইভাবে হাটিস না। আর মা-বাবার চেয়ে আপনজন আর কেউ নেই। বাবা রিক্সা থেকে নেমে আমার পিছুপিছু আসতে লাগলো। আমার কাছে পুরো পৃথিবীটা অন্ধকার লাগছে। বাবার কোনো কথার উত্তর দিতে ইচ্ছে করছে না। অবশেষে অনেক ভেবেচিন্তে বাবাকে বললামঃ-
__বাবা আমি যদি তোমাদের না জানিয়ে কোনো মেয়েকে বিয়ে করে ফেলি তোমরা কষ্ট পাবে..? বাবা আশ্চর্য হয়ে আমার সামনে গিয়ে দাঁড়িয়ে বললোঃ-
__এ কেমন কথা..? হঠাৎ বিয়ের কথা মাথায় আসছে কেন..?
__তুমি তো জানো আমি তোমাদেরকে না জানিয়ে কোনোকিছু করি না।
__হ্যা জানি।
__তাহলে বলো আমার একটা কথা তুমি রাখবে?
__কোন কথা আর আমি রাখবো না এমন মনে হলো কেন?
একটা জিনিস কি জানেন আমার সবচেয়ে কাছের বন্ধু কে জানেন আমার বাবা। আমি যাই করি না কেন উনি আমার পক্ষেই থাকবেন। বিপদেআপদে উনি সর্বক্ষণ আমার সাথে আছেন। কারণ উনি ভালো করেই জানে আমি যা করি ভালো কাজ করি এবং উনাকে জানিয়ে করি। এখন পর্যন্ত এমন কোনো কাজ করি নাই যে বাবা কষ্ট পেয়েছে। আমার মত এমন বাবা যে পেয়েছে সে ধন্য হয়েছে। আমি ধন্য এমন একটা বাবা পেয়ে। অনেক ভাবাভাবি শেষে ডিসিশন নিলাম নিশিকে আমিই বিয়ে করবো। অন্ততপক্ষে আমার জন্য একটা নিরপরাধ বাচ্চা এবং নিশি নামের একটা মেয়ে বেঁচে যাবে। আশা করি নিশিকে বিয়ে করলে আমি এবং নিশি দুজনেই খুব সুখে থাকবো। সমাজের লোক কি বললো না বললো তাতে কান দিবো না। তারপর বাবাকে নিশির ব্যাপারে খুলে বললাম। প্রথমে বাবাকে বললামঃ-
.
__বাবা আমি নিশিকে বিয়ে করতে চাই। বাবার আমার দিকে তাকিয়ে বললোঃ-
__বিয়ে এমন একটা সম্পর্ক মুখে বললেই হয় না। তোর ডিসিশন এ আমি একমত। তুই যা করতে যাচ্ছিস একদম ঠিক করছিস।
__বাবা আমি তাহলে নিশিকে জানিয়ে দিবো?
__হ্যা জানা তবে এখন বিয়ে হলে জীবনটাই শেষ। তোর আর নিশির বিয়ের সময় হয়নি।
__তাহলে এখন কি করবো?
__তোরা দুজনেই আগের মত পড়ালেখা করবি। কাল থেকে কলেজে যাবি।
বাবাকে জড়িয়ে ধরে কেঁদে দিলাম। আমি হয়তো বাবাকে না জানিয়ে নিশিকে বিয়ে করতে পারতাম কিন্তু কোনোদিন সুখী হতে পারতাম না। তাদের কাছে চিরদিন অপরাধী হয়ে থাকতাম। তাই এসব ডিসিশন নেয়ার আগে মা-বাবা এদের জানানো উচিত। হয়তো অনেকের মা-বাবা মেনে নিবে না। যারা অন্ততপক্ষে একবার চিন্তা করে যে তার ছেলে মা-বাবা সম্মানের কথা ভেবে তাদের কাছে বলতে আসছে তাহলে আশা করি কোনো মা-বাবাই না করবে না। অনেকেই হয়তো ভাবছেন মুখে বলা সহজ। কাগজে কলমে লেখা খুব সহজ। কিন্তু বাস্তবতা খুব কঠিন। ভাই এরকম অনেক ঘটনা আছে ঠিক এর সাথে মিলে যাবে। বাস্তবে এমন ঘটে। পুরোটা না মিললেও বেশিরভাগ মিলে যাবে। যাইহোক বাবার সাথে বাড়িতে গেলাম। লাঞ্চ করে নিশিদের বাড়ির উদ্দেশ্যে বের হব ঠিক তখন লুবনার ফোন। লুবনা মানে অপ্সরী মেয়েটা।
.
__কই তুমি.? আমাকে নিয়ে ঘুরতে যাবার কথা ছিলো। কখন থেকে সাজগোজ করে দাঁড়িয়ে আছি। লুবনার কথা শুনে থতমত খেলাম। আমি আবার কখন ওর সাথে ঘুরতে যাবার কথা বললাম। হয়তো এই নিশিকে নিয়ে টেনশন করতে করতে ভুলে গেছি। আস্তে করে বললামঃ-
__আজকে যেতে পারবো না। কাল নিয়ে যাবো। আমার কথা শুনে ছোট বাচ্চা পোলাপানের মত কান্না শুরু করে দিলো লুবনা। লুবনাকে নিশির আর আমার ব্যাপারে বলা উচিত। আমি জানি লুবনা আমাকে ভালোবাসে তাই আগে থেকেই বুঝানো দরকার। অনেক্ষন চুপ থাকার পর বললামঃ-
.
__লুবনা আমি নিশিকে বিয়ে করবো কথাটা পুরোপুরি বলতে পারলাম না তার আগেই ফোনটা কেটে দিলো। হয়তো আমার সাথে অভিমান করছে। ফোনটা পকেটে ঢুকিয়ে একটা রিক্সায় উঠলাম। যেতে বেশি সময় লাগে না। কিছুক্ষণ পর রিক্সা থেকে নামলাম। রাস্তা থেকে একটু দূরে নিশিদের বাড়ি। দূর থেকেই নিশিকে দেখা যাচ্ছে। আমাকে দেখে নিশি এদিকে আসছে। ভাবছি নিশিকে কিভাবে বলবো আমি তোকে বিয়ে করতে চাই। ছেলেদের লজ্জা না থাকলেও কেন জানি নিশিকে বিয়ের কথা বলতেই লজ্জা লাগছে। হয়তো আমার কথা শুনে হাসবে। নিশি আর আমার দুরত্ব মনে হয় দশ ফুট হবে। আমি হঠাৎ দাঁড়িয়ে গেছি। আমার দাঁড়ানো দেখে নিশিও দাঁড়িয়ে গেছে। এখানে এসে কেউ আর সামনে এগুচ্ছি না। আমি নিশিকে বিয়ের কথা বলতে যাবো ঠিক তখন নিশি বললোঃ-
.
__পর্বঃ- ০৫__


প্রতিদিন সব ধরনের খবর জানতে ও মজার মজার ভিডিও দেখতে আমাদের ফেইসবুক পেজে লাইক কমেন্ট শেয়ার করে এক্টিভ থাকুন -বাংলাদেশ অনলাইন, পত্রিকা, সময় সংলাপ ডট কম,আমাদের ফেইসবুক পেজ লাইক দিতে নিচে ফেইসবুক লাইক বটন এ ক্লিক করুন ,অনেক ধন্যবাদ আবার আসবেন

sponser