,
সংবাদ শিরোনাম :

বিওএ’র আপত্তিতে কোচ আনতে পারছে না বক্সিং খেলা

সময় সংলাপ ডেস্ক

কমনওয়েলত গেমস ও এসএ গেমসকে সামনে রেখে বিদেশি কোচ আনতে চেয়েছিল বাংলাদেশ বক্সিং ফেডারেশন। কোচও চূড়ান্ত করে ফেলেছিলেন ফেডারেশন কর্মকর্তারা। সবকিছু ঠিকঠাক করার পর এতে বাগড়া দিয়েছে বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশন (বিওএ)। অতীত বিবেচনা করেই বক্সিং ফেডারেশনের নির্ধারণ করে দেয়া কোচের খরচ দিতে রাজি না সংস্থাটি।
আগামী বছর অস্ট্রেলিয়ার গোল্ডকোস্টে কমনওয়েলথ এবং ২০১৯ সালে নেপালে অনুষ্ঠিত হবে সাউথ এশিয়ান (এসএ) গেমস। এই দু’টি গেমসের প্রস্তুতিটা জুতসই করতেই কাজাখস্তানের অভিজ্ঞ কোচ ঝানবেক কুলনিইয়াজবকে আনতে চেয়েছিল বক্সিং ফেডারেশন।

২০০০ সালে কাজাখস্তানের যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের কোচ ছিলেন ১৯৫৬ সালে জন্ম নেয়া এই বক্সার। ওই বছরে সিডনিতে অনুষ্ঠিত সামার অলিম্পিকে তারই শিষ্য ইব্রাহিমভ ৭১ কেজি ওজন শ্রেণিতে স্বর্ণ জিতেছিলেন। বাংলাদেশে আসার জন্য মাসিক চার হাজার ডলার চেয়েছিলেন আইবার (আন্তর্জাতিক বক্সিং অ্যাসোসিয়েশন) লেভেল-১ ও ২ কোর্সধারী এই কোচ। বিদেশি এই কোচের ব্যাপারে ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক এমএ কুদ্দুস খান বলেন ‘২০১৪ সালেও কমনওয়েলথ গেমসের আগে আমরা ইউক্রেনের গুরেনকো আলেক্সান্দারকে এনেছিলাম। তাকেও মাসিক চার হাজার ডলার দিতে হয়েছিল। এবারো আমরা বিওএতে আবেদন করেছিলাম। কিন্তু বিওএ ফান্ড নেই বলায় ঝানবেক কুলনিইয়াজবকে আনতে পারছি না। খুব ভালো মানের কোচ তিনি। উনাকে আনতে পারলে কমনওয়েলথ গেমসের ক্যাম্পে থাকা বক্সারদের জন্য ভালো হতো।’ তবে বক্সিংয়ে বিদেশি কোচের সিদ্ধান্তহীনতার কথাই জানালেন বিওএর উপ-মহাসচিব আশিকুর রহমান মিকু। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘কমনওয়েলথ গেমসে ছয় ডিসিপ্লিনের মধ্যে কেবল শুটিং ও সাঁতারে বিদেশি কোচ রয়েছে। মান যাচাই করেই বিদেশি কোচের পেছনে খরচ করছে বিওএ। ২০১৪ সালেও আমরা বক্সিংয়ে ইউক্রেনের গুরেনকোকে এনেছিলাম। কিন্তু দেখা গেল, বক্সিং রিংয়ের পাশে দাঁড়ানোর মতো যোগ্যতাও তার ছিল না। তাই এত অর্থ খরচ করে এবার আর বক্সিংয়ের জন্য বিদেশি কোচ আনার ব্যাপারে একমত হতে পারিনি আমরা।’


প্রতিদিন সব ধরনের খবর জানতে ও মজার মজার ভিডিও দেখতে আমাদের ফেইসবুক পেজে লাইক কমেন্ট শেয়ার করে এক্টিভ থাকুন -বাংলাদেশ অনলাইন, পত্রিকা, সময় সংলাপ ডট কম,আমাদের ফেইসবুক পেজ লাইক দিতে নিচে ফেইসবুক লাইক বটন এ ক্লিক করুন ,অনেক ধন্যবাদ আবার আসবেন

sponser