,
সংবাদ শিরোনাম :

সমাবেশে কাউকে জোর করে আনা হয়নি: কাদের

সময় সংলাপ ডেস্ক

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের অভিযোগের জবাবে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, গত শনিবারের সমাবেশে কাউকে জোর করে আনা হয়নি। এটা মিথ্যাচার। কাউকে বাধ্য করে আনার প্রশ্নই ওঠে না। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা স্বতঃস্ম্ফূর্তভাবে অনুষ্ঠানে যোগ দেন।

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বঐতিহ্যের স্বীকৃতি পাওয়ায় শনিবার রাজধানীতে আনন্দ শোভাযাত্রা ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ হয়। একই ঘটনায় গত ১৮ নভেম্বর সোহরাওয়ার্দীতে নাগরিক সমাবেশ হয়।
বিএনপি মহাসচিব অভিযোগ করেন, সমাবেশে স্কুলের শিক্ষার্থীদের যোগ দিতে বাধ্য করা হয়েছে। এর জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘চ্যালেঞ্জ করলাম, কোনো স্কুলের ছাত্রছাত্রী সেখানে ছিল না।’

রোববার ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে বিরল রোগে আক্রান্ত শিশু লাবিদ আল লিখনের চিকিৎসা সহায়তা দিতে গিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বুলেট প্রুফ জ্যাকেট নাকি ছিল। চ্যালেঞ্জ করছি, কোথায় বুলেট প্রুফ জ্যাকেট ছিল? আমি তো সেখানে ছিলাম, আমি তো দেখিনি। শেখ হাসিনা কাউকে পরোয়া করেন না, ভয় পান না।’

বিএনপির উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, তারা ৭ মার্চকে ভয় পায়। এই ভাষণকে তারা নিষিদ্ধ করেছিল, এখন আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি পাওয়ায় তাদের গাত্রদাহ শুরু হয়েছে। দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকায় বিএনপি অস্থিরতায় ভুগছে। ক্ষমতায় না থাকলেই তাদের মধ্যে অস্থিরতাটা বাড়ে। তাদের তো আন্দোলন-সংগ্রামের অভিজ্ঞতা নেই, ইতিহাস নেই।

দলটির আন্দোলন করে ক্ষমতায় যাওয়ার সক্ষমতা নেই বলে দাবি করেন তিনি। তবে তিনি তাদের দুর্বল মনে করেন না। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপি হেলাফেলার দল নয়, সাংগঠনিকভাবে তারা যতই দুর্বল হোক না কেন, উল্লেখযোগ্য জনগণ তাদের সমর্থন করে।
ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আট বছর বয়সী লিখন ‘অস্টিও জেনেসিস ইম্পারফেক্টা’ নামক বিরল রোগে আক্রান্ত। রোববার তাকে দেখতে গিয়ে ৫০ হাজার টাকা সহায়তা দিয়ে চিকিৎসার দায়িত্ব নেওয়ার আশ্বাস দেন ওবায়দুল কাদের। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার এ কে এম নাসির উদ্দিন, অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক মো. শামসুজ্জামান, সারওয়ার ইবনে সালাম প্রমুখ।

সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ঢামেক হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে দীর্ঘদিন ধরে চিকিৎসা চলছে লিখনের। এ সপ্তাহে তার দু’পায়ে অস্ত্রোপচার করে টেলিস্কোপিক নেইল বসানো হবে। কয়েকটি ধাপে তার অস্ত্রোপচার করা হবে।


প্রতিদিন সব ধরনের খবর জানতে ও মজার মজার ভিডিও দেখতে আমাদের ফেইসবুক পেজে লাইক কমেন্ট শেয়ার করে এক্টিভ থাকুন -বাংলাদেশ অনলাইন, পত্রিকা, সময় সংলাপ ডট কম,আমাদের ফেইসবুক পেজ লাইক দিতে নিচে ফেইসবুক লাইক বটন এ ক্লিক করুন ,অনেক ধন্যবাদ আবার আসবেন

sponser